পোস্টটি সম্পূর্ণ নতুনদের জন্য *কন্টেন্ট রাইটিং সম্পর্কে°★

<< পোস্টটি সম্পূর্ণ নতুনদের জন্য >> °কন্টেন্ট রাইটিং সম্পর্কে°★কন্টেন্ট রাইটিং কি?কন্টেন্ট রাইটিং হল নিজের মনের মাধুরী দিয়ে কিবোর্ড দিয়ে সুন্দর করে আর্টিকেল লিখে দেয়া। এটির ডিজিটাল মার্কেটিং এর মধ্যে পড়ে এবং ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি পাঠ বা অংশ। ডিজিটাল মার্কেটিং এর সব থেকে বৃহত্তম মার্কেটিং এর অংশ এসইও (সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন) ।পেশা হিসেবে “কনটেন্ট রাইটিং” একটি সৃজনশীল পেশা। এ পেশায় দক্ষতা-যোগ্যতার পাশাপাশি আপনার সৃজনশীলতাকেও কাজে লাগাতে হবে। বিষয়টা একেবারে খুব জটিল বা কঠিন পর্যায়ের কিছু, তা বলছি না। তবে কিছু বিষয় আপনাকে আয়ত্ব করে নিতে হবে। দীর্ঘসময় ধরে কাজ করলে বিষয়গুলো এমনিতেই আয়ত্বে এসে যায়।★কনটেন্ট রাইটিং কত ধরণের হতে পারে?কনটেন্ট রাইটিং বিভিন্ন ধরণের হতে পারে..এর মধ্যে কয়েকটি দেওয়া হল….• এস ই ও কনটেন্ট রাইটিং• ওয়েব কনটেন্ট রাইটিং• অ্যাফিলিয়েট কনটেন্ট রাইটিং• ব্লগ রাইটিং• প্রোডাক্ট ডেসক্রিপশান রাইটিং★একজন কন্টেন্ট রাইটারের কী ধরনের দক্ষতা এবং জ্ঞান থাকতে হবে?• বাংলায় লিখতে চাইলে বাংলা ভাষা ও ব্যাকরণের উপর ভালো জ্ঞান..• ইংরেজিতে লিখতে চাইলে ইংরেজি ভাষা ও ব্যাকরণের উপর ভালো জ্ঞান..• কোন বিষয় নিয়ে গবেষণা করার দক্ষতা..• সহজেই বোঝা যায়, এমনভাবে লেখার ক্ষমতা..• লেখার ভেতর বৈচিত্র্য নিয়ে আসতে পারা• ঠিক বানানে দ্রুত লেখার অভ্যাসটেকনিক্যাল বিষয়ে লিখতে হলে সে বিষয়ের উপর দীর্ঘমেয়াদী পড়াশোনা থাকা জরুরি।অনলাইনে কাজ করার জন্য কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (যেমনঃ ওয়ার্ডপ্রেস) আর সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (SEO) নিয়ে ভালো ধারণা থাকলে আপনার গ্রহণযোগ্যতা বেড়ে যাবে অনেক।★কনটেন্ট রাইটিং এর ফিউচার কেমন?ইন্টারনেটের ব্যবহার বৃদ্ধির সাথে সাথে বেড়ে কনটেন্ট রাইটিং এর চাহিদা । কারন যেকোন কিছুর ডিজিটাল উপস্থিতি বা ইন্টারনেটে উপস্থিতি নিশ্চিত করতে আগে দরকার কনটেন্ট ।সেই ১৯৯৬ সালে বিল গেটস বলেছিলেন “কনটেন্ট ইজ কিং’’। ব্যাপারটা তেমনি হয়ত থাকবে কারন অন্য অনেক কাজ রোবট বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স দিয়ে প্রতিস্থাপন করা গেলেও লেখালেখির কাজের ক্ষেত্রে তা সম্ভব হয়নি এখনো…★কীভাবে একজন ভালো কন্টেন্ট রাইটার হবেন?কন্টেন্ট রাইটিংয়ের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো প্রচুর পড়ালেখা করা, লেখালেখির চর্চা করা। লেখায় বৈচিত্র্য আনতে চাইলে বিভিন্ন বিষয়ের বই পড়ার অভ্যাস করতে হবে।কাজ শেখার জন্য ইন্টারনেট অন্যতম একটি মাধ্যম।

You May Also Like

About the Author: admin

Leave a Reply